কি ধরণের পণ্য নিয়ে ই-কমার্স শুরু করবো ?

কি ধরণের পণ্য নিয়ে ই-কমার্স শুরু করবো ?

কি ধরণের পণ্য নিয়ে ই-কমার্স শুরু করবো ?

কি ধরনের পন্য নিয়ে ই-কমার্স করব? আমাকে এই প্রশ্ন অনেকেই করে থাকেন এই প্রশ্নের সহজ একটা উত্তর আছে। সেটা হলো-যিনি এখনো এই স্টেজে আছেন মানে কি পন্য নিয়ে কাজ করবেন সেটা বুঝতে পারছেন না। তার জন্য ই-কমার্সে একটু সময় নিয়ে আসাই ভালো। তারপর ও ভবিষ্যতের ই-কমার্স উদ্যোক্তাদের জন্য এই লেখাটি লেখা।

আমি এমন কিছু পয়েন্ট তুলে ধরব। যাতে আপনি কি পন্য নিয়ে কাজ করবেন সে সিদ্ধান্তটা আপনি নিজেই নিতে পারেন।

🔹 সব পন্য নিয়ে শুরু করবেন না

অনেকে বড়ো করে স্বপ্ন দেখেন যে, দেশের সব পন্য তিনি বিক্রি করবেন। কিন্তু এটা ভুল। কারণ শুরুতে সব পন্য নিয়ে কাজ করার জন্য যে বিনিয়োগ, লোকবল ও অন্যান্য সেটআপ দরকার হয় সেটা ম্যানেজ করা কঠিন হয়ে যায়। তাই সব ধরনের পন্য নিয়ে ব্যবসা করা মোটেই ভালো সিদ্বান্ত নয়।

🔹 একটি পন্য বা একই ধরনের পন্য নিয়ে কাজ করুন

শুরুতে যেকোনো এক বা অল্প কিছু পন্য নিয়ে শুরু করুন। মাল বিক্রি হলে এক আইটেম দিয়েও ব্যবসা করা যায়। আপনার এলাকার চালের ব্যবসায়ী কিংবা সিমেন্ট দোকান দেখলেই বিষয়টি বুঝতে পারবেন। এতে সবচেয়ে বড়ো সুবিধা হলো প্রমোশনের ভালো ফল পাওয়া যায়। যেমন ধরুন আপনি হিজাব বিক্রি করেন। তাহলে আপনাকে মোটামুটি মধ্যবিত্ত ও রক্ষণশীল এবং নারীদের উদ্দেশ্য করে প্রমোশন চালালে হবে।

🔹 নিশ মার্কেট খুজে বের করুন সেটাই ভালো

যেমন বেশীরভাগ ই-কমার্স সাইট কিন্তু পোশাক আর গেজেট নিয়ে। কিন্তু যারা নিশ মানে ভিন্ন কিছু নিয়ে কাজ করছে তাদের কিন্তু কম্পিটিটর কম। ফলে তারা আস্তে আস্তে দাড়িয়ে যায়। আমাদের সামনে সবচেয়ে ভালো উদাহরণ হলো রকমারি ডট কম।

🔹 ব্যতিক্রম কিছু করা কি আসলে কঠিন?

ব্যতিক্রম কিছু করা একটু কঠিন বটে। কিন্তু একবার দাড়িয়ে গেলে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না। বিশেষ করে আপনি যদি কিছু সংখ্যক কাস্টমারকে একবার ভরসা দিতে পারেন। তাহলে তারা বার বার আপনার উপর ভরসা রাখবে।

যেমন আপনি যদি ফার্নিচার কিংবা গাড়ির পার্টসও বিক্রি করেন। তাতেও কোনো সমস্যা নেই। আপনি সঠিক জিনিস দিয়ে বিশ্বাস তৈরী করলে একসময় লোকেরা ভরসা রাখবে। যেখানে কুরবানীর গরু বিক্রি হতে পারে সেখানে ফার্নিচার কোনো বিষয় না।

🔹 কিছু ব্যতিক্রমি ও নিশ পন্যের উদাহরণ

আপনাদের জানার বোঝার জন্য কয়েকটি বিষয়ে নিশ পন্যের ই-কমার্স সাইট সম্পর্কে আমি বলতে চাই। এগুলো আমি জানি কারণ এরা বিভিন্ন সময় আমার কাছে পরামর্শ নিতে এসেছেন। এক ভদ্রমহিলা বাচ্চাদের খাবারের একটা ই-কমার্স সাইট আছে। আরেক ভদ্রমহিলা শুধু নবজাতকের কাঁথা বানান। একজন আছে মিষ্টি বেচেন। একজন শুটকি আরেকজন শুধু ইলিশ শুটকি। এছাড়া টাঙ্গাইলের শাড়ি, সুন্দরবনের মধু নিয়েও একক ই-কমার্স রয়েছে।

🔹 ভবিষ্যতে চাহিদা হতে পারে এমন কিছু পন্য

বাচ্চাদের খেলনা, মেডিসিন, গাড়ির পার্টস, শিক্ষাসামগ্রী, বিউটি পারলার পোডাক্ট নিকট ভবিষ্যতে ই-কমার্সের বাজারে চলে আসবে। আর গ্রামীন পন্য বিশেষ করে সবজি দুধ আর এলাকার বিশেষ পন্য বিভিন্ন মিষ্টি অলরেডি চলে এসেছে ই-কমার্সে। খুব শীঘ্রই শুনবেন রান্না করা খাবার এ্যাপের মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছে।

এবার আপনি ঠিক করুন আপনি কি নিয়ে শুরু করবেন।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *