মার্কেটিং নিয়ে প্রচলিত ২ টা ভুল

মার্কেটিং নিয়ে প্রচলিত ২ টা ভুল

আপনি একটা বিজনেস করছেন কিংবা ভাবছেন করবেন। এই দুই ধারায় যারা থাকেন তাদের মাঝে বেশির ভাগ মানুষ ২ টা ভুল করেন। তারা ভাবেন এই ভুলই ঠিক। এর মাঝে আজকাল ভাবা হয় আমাদের দেশে ই কমার্স বিজনেস সবচেয়ে সহজ এবং লাভজনক বিজনেস। সবার খুব সহজ চিন্তা আমার কাছে পণ্য নাই তাতে কি ছবিতো আছে, ছবি আপলোড দিলেই হবে আর ১ টাকার পণ্য ১০০ টাকায় সেল করবো… দিন শেষে লাভ আর লাভ। 

আমি আমার কারুকর্ম নিয়ে ৩ বছর আগে ই কমার্স বিজনেসের পথে হাঁটা শুরু করি। গত ৩ বছরে আমি দেখছি অনেক মানুষকে ই কমার্স বিজনেস শুরু করতে এবং ঝড়ে যেতে। কারন আমরা প্রথমেই ২ টি ভুল করি।

১. সেলস মানেই মার্কেটিং 

এইটা আমাদের খুব বড় ভুল ধারনা। মার্কেটিং মানে পণ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে গ্রাহকের হাতে তুলে দেয়া পর্যন্ত কিছু ক্ষেত্রে তা পণ্য বিক্রয়উত্তর সেবা পর্যন্ত। সেলস মানে গ্রাহকের কাছে বিক্রয় করে মুনাফা করা মানে মার্কেটিং এর শেষ ধাপ বলা যায়। 

ধরুন আপনি রাস্তা দিয়ে যাবার সময় কিংবা গ্রামের বাড়ি ফিরার পথে আম, কমলা বা কিছু কিনলেন। এই ক্ষেত্রে আপনি এবং বিক্রেতা দুইজনই জানেন আপনাদের পরবর্তীতে আর কোন লেনদেন হবে না তাই বিক্রেতা আপনার কাছে বিক্রি করে মুনাফা করলেই খুশি, আপনাকে আর অন্য কোন সেবা দেয়ার প্রয়োজন নেই। তাই মাঝে মাঝে বাড়ি ফিরে আম, কমলার প্যাকেট খুলে দেখবেন তার মাঝে আম, কমলা পচা আছে।

অন্য দিকে মার্কেটিং এমন কিছু না। আপনি একটা ভালো পণ্য উৎপাদন করবেন এবং তা গ্রাহকের হাতে দিবেন সাথে আপনি আপনার বিশ্বাসও তার কাছে বিক্রয় করবেন। মার্কেটিং এ বলা হয় ক্রেতা বলে কিছু নেই সবাই আপনার প্রতিষ্ঠানের অংশীদার। বিখ্যাত ফোন নির্মাতা অ্যাপেলের কথাই ভাবুনতো, তারা কি আপনার কাছে শুধুই পণ্যটা দিচ্ছে নাকি তাদের বিশ্বস্ততাও আপনার কাছে সেল করছে??? আপনি হাজার টাকা তাদের দিতে রাজী কারন আপনি তাদের বিশ্বাস করেন, আপনি বিশ্বাস করেন তারা আপনাকে খারাপ কিছু দিবে না এবং দিলেও আপনি তাদের অভিযোগ করলে তারা তা আপনাকে পোষিয়ে দিবে। তারা তাদের মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনাকে বিশ্বাস করিয়েছে। কিন্তু সেই ফল বিক্রেতার কথা মনে আছে তো? 

২. মূল্য কমিয়ে দিলেই সেল বেশি হবে

এই ধারনাটা ই কমার্স কিংবা প্রথাগত বিজনেস দুই ক্ষেত্রেই ভুল কিন্তু ৯০% মানুষ এই বিষয়টা সঠিক ভাবে। তারা ভাবে মূল্য কমিয়ে দিলেই সব ক্রেতা আমার হয়ে যাবে কিন্তু এটা চিন্তা করে না যে আমার কম্পিটিটররা আগেই ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করে রেখছে। আর মূল্য কমিয়ে দিলে লাভ করা যাবেন না এই কথা বেশিরভাগ মানুষের মাথায় থাকে না। 

অনেকেই ক্রেতা ধরার জন্য মূল্য কমান কিন্তু সেটাও একটা সীমা পর্যন্ত থাকা দরকার। কারন আপনি বিজনেস করতে এসেছেন কোন দাতব্য সেবা দিতে আসেন নি। ওটবি কে আমরা সবাই চিনি তারা বর্তমানে বিজনেসে খুব খারাপ সময় পার করছে। তাদের সাভারের কারখানা পুড়ে যাবার পর তাদের সেল বাড়ানোর জন্য তারা কম্পিটিটোদের থেকে বেশী ডিসকাউন্ট দিয়েছে। অন্যরা দিতো ১৫% পর্যন্ত আর ওটবি দিয়েছে ৫০% পর্যন্ত। তাতে কিন্তু তাদের সেল বাড়েনি উল্টো তাদের ব্রান্ড ভ্যালু প্রশ্নের মুখে পড়েছে। কারন তার কম্পিটিটররা প্রচার করেছে “ভালো জিনিষের বেশি ডিস্কাউন্ট লাগে না”। 

মার্কেটিং গুরু ফিলিপ কটলার তার “ফান্ডামেন্টাল মার্কেটিং” বইয়ে ভারতের এক ছাতা কোম্পানির এনালাইসিস দিয়েছেন। সেখানে তিনি দেখিয়েছেন মূল্য কমিয়ে দেয়ার জন্য ঐ ছাতা কোম্পানির সেল কমে গিয়ে লস বেড়েছে। তার কারন হিসেবে যা বের হয়েছে তাহল “যখনি পণ্যের মূল্য কমে যায় তখন ক্রেতার মনে সংশয় জাগে, এই পণ্যের মান আগের মত আছে তো?” আর তাতেই তার ব্রান্ড ভ্যালু কমে মানে কোম্পানির উপর মানুষের বিশ্বাস থাকে না।

আপনি মূল্য কমিয়ে মার্কেটে একটা অসুস্থ প্রতিযোগিতা শুরু করতে পারেন কিন্তু দিন শেষে আপনি মার্কেটটাই নষ্ট করে ফেললে আপনারই লস। কারন ছাড় দিতে দিতে কত দিবেন? ধরুন আপনি ৫ টাকা প্রফিট না করে ৪ টাকা করবেন। এখন আপনার কম্পিটিটররা কিন্তু বসে থাকবে না তারাও আপনার চেয়ে মূল্য কমিয়ে ৩ টাকায় লাভ করার চেস্টা করবে। আবার আপনি হয়তো ভাবলেন আপনি শুন্য টাকা প্রফিট করবেন তখন আপনার কম্পিটিটররাও সেই একই কাজ করলো, তাতে ক্রেতারা লাভবান হল ঠিকই কিন্তু দিন শেষে আপনি লাভ না করে আপনার বিজনেস কতদিন চালাতে পারবেন? আর বিক্রয়উত্তর সেবাও দিতে পারবেন না।

আপনার এলাকাতে যারা ইন্টারনেট সংযোগ দেন তাদের মাঝে ধরুন একজন ৩৫০ টাকা যে স্পীড দিচ্ছে সেই একই স্পীড অন্য জন ৫০০ টাকায় দিচ্ছে। আপনার সবাই সম্ভাবত ৩৫০ টাকার সংযোগ নিবেন কিন্তু সংযোগ তো শেষ কথা না তার পর নানাবিদ সমস্যা হবে আর সেই সমস্যা যদি তাৎক্ষনিক সমাধান না হয় তাহলে কিন্তু বিরক্ত হবেন এবং গ্রাহক হিসেবে তখন ভাববেন – আমার ১৫০ টাকা বেশী যাক তাও আমি হেসেল ফ্রী চাই। যে কারনে সরকারী হাসপাতালে অনেক উন্নত চিকিৎসা থাকার পরও শুধুমাত্র ভোগান্তি এড়াতে মাঝেমধ্যে আমরা বেশী টাকা খরচ করে নিম্ন মানের চিকিৎসা প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে গ্রহন করি। তাই পণ্যের মূল্যই সব নয়। কম মূল্য হলেই যে আপনার পণ্য বা সেবা সবাই নিবে তা না।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *